ঢাকারবিবার - ৭ নভেম্বর ২০২১
  1. করোনাভাইরাস
  2. খেলা
  3. চাকরি
  4. দুর্ঘটনা
  5. ধর্ম
  6. বাণিজ্য
  7. বাংলাদেশ
  8. বিনোদন
  9. বিশেষ সংবাদ
  10. বিশ্ব
  11. মতামত
  12. রাজনীতি
  13. লাইফস্টাইল
  14. সর্বশেষ
আজকের সর্বশেষ সবখবর

রিং আইডি কমিউনিটি জব এর গ্রাহকরা মানববন্ধন করবে ৯ নভেম্বর রবিবার

somadanbd
নভেম্বর ৭, ২০২১ ৪:২২ অপরাহ্ণ
Link Copied!

রিং আইডি কমিউনিটি জব এর গ্রাহকরা মানববন্ধন করবে ৯ নভেম্বর রবিবার

বর্তমানে এক আতংকের নাম হলো রিং আইডি কমিউনিটি জব! রিং আইডি অনেকের কাছে টাকা নেয় যেখানে ১২ হাজার টাকায় এবং ২২ হাজার টাকায় আইডি খুলে প্রতিদিন ২৫০ এবং ৫০০ টাকা ইনকাম করা যেত। কিন্তু রিং আইডির এই জব টিকে নি বেশি দিন। রিং আইডির এই কমিউনিটি জব চালু আছে কিন্তু বন্ধ হয়ে যায় তাদের গ্রাহকদের পেমেন্ট দেয়া। অনেকেই বলছে তারা জব এর নামে এমেমেল ব্যাবসা করছে, আবার অনেকেই বলছে তারা কারো টাকা নেয় নি। আসনের ঝামেলায় তাদেরকে তাদের কমিউনিটি জব বন্ধ করে দিতে হয়েছে। আর এই বিষয়ে ২ দল ২ দিকে বিভক্ত হয়ে যায়। একটি দল হলো রিং আইডি টাকা নিয়ে চলে গেছে আর একটি দল হলো রিং আইডি কারো টাকা নেয় নি। তারা আইনের ঝামেলার কারণে এবং তাদের বেংক একাউন্ট সিজ করে রাখার কারণে তারা গ্রাহকদের পেমেন্ট করতে পারছে না। আর মানুষ এই ২ দলে বিভক্ত হয়ে যাওয়ার কারণে তারা মানববন্ধন রেখেছে ৯ নবেম্ভর (রবিবার) ঢাকায়।

গবেষণার দেখা যায় তারা প্রায় ৩-৫ হাজার মানুষ আসবে এই মানববন্ধনে। আবার অনেকে বলেন রবিবার (৯ নবেম্ভর) ধর্মঘট হতে পারে ঢাকায়। রিং আইডি এর CEO বলেন, রিং আইডি কমিউনিটি জব এ যারা যারা ইনভেস্ট করেছে কিন্তু এখনও কোনো টাকা পেমেন্ট পায়নি তারা সবাই তাদের টাকা ফেরত পাবে। রিং আইডি ব্যাবহারকারীরা বলেন তাদের এই মানববন্ধনের কারণে রিং আইডি রবিবার বাংলাদেশ এর সব টিভি চ্যানেলের হট নিউজ থাকবে। অনেকেই বলেছে তারা তাদের টাকা পেয়েছে, অনেকে বলছে তারা তাদের পুজি পাওয়ার পরে আরও লাভ পেয়েছে, আবার অনেকে বলছে রিং আইডি কমিউনিটি জব এর ইনভেস্ট করার পর তারা কোনো টাকা পায় নি। রিং আইডিতে কমিউনিটি জব এ ইনভেস্ট করার লাখের ও বেশি মানুষ তাদের টাকা পায় নি। লাখ লাখ মানুষের কোটি কোটি টাকা রিং আইডির কাছে যা এখনও গ্রাহক পেমেন্ট পায় নি। যখন থেকে রিং আইডি তে একাউন্ট খোলা বন্ধ হয়ে গেছে তখন থেকে কেউ আর টাকা পায় নি।

প্রথম রিং আইডি তাদের অফিসের মাধ্যমে গ্রাহকদের পেমেন্ট দিত। কিন্তু কিছুদিন পর থেকে তারা এজেন্ট সিস্টেম চালু করে। এজেন্ট সিস্টেমের কাজ ছিল গ্রাহকদের পেমেন্ট করা। গ্রাহকরা যেমন কমিউনিটি জব এ টাকা দিয়ে এখন করে টাকা ইনকাম করত তেমনি এজেন্ট দেরও টাকা দিয়ে এজেন্টশীপ নিতে হতো। আর সেই টাকার পরিমাণ ছিল এক লাখ, দুই লাখ এবং পাঁচ লাখ। তারাই টাকা দিয়ে এজেন্টশীপ নেয়ার পর তাদের কাজ ছিল প্রতিদিন রিং আইডি তে কমিউনিটি জব এর মেম্বারশিপ বিক্রি করা। প্রতি মেম্বারশিপ থেকে তারা চার পারসেন্ট করে কমিশন পেত। তারা রিং আইডি থেকে কোন প্রকার টাকা পেত না। মেম্বারশিপ যে টাকাই বিক্রি করতো সেটাই তাদের ইনকাম ছিল। মানে এখান থেকে স্পষ্টভাবে বুঝা যায় মেম্বারশিপ বিক্রি করতে পারলে তারা টাকা পাবে আর যদি বিক্রি না করতে পারে তাহলে তারা কোন প্রকার টাকা পাবে না। আর গ্রাহকরা তাদের থেকে ক্যাশ আউট করলে তাদের চার পারসেন্ট করে লাভ থাকতো। রিং আইডির গ্রাহকদের ইনকাম ছিল এড দেখে। প্রতি এডে পাঁচ টাকা করে দিত রিং আইচ। এ নিয়ে প্রশ্ন তোলে অনেকে যে, একটি এড থেকে কিভাবে 5 টাকা করে দেয়া যায়? তারপর তারা জানায়, তাদের শুধু অ্যাড থেকেই না আর বিভিন্ন সোর্স আছে টাকা ইনকামের। আর তারা তাদের ওই টাকা থেকেই গ্রাহকদের টাকা দিত। কিন্তু কিছুদিন পর অফিস পেমেন্ট সিস্টেম বন্ধ করে দেয়া হয়। যখন থেকে আইডি বিক্রি বন্ধ হয় তখন থেকে অফিস ক্যাশ আউট সম্পূর্ণভাবে বন্ধ করে দেয়া হয়। আর এর কিছুদিন পর থেকেই এজেন্ট ক্যাশ আউট বন্ধ করে দেয়া হয়। তারপর রিং আইডি এর সি ইউ জানায় তাদের ব্যাংক একাউন্ট সিজ করে রাখা হয়েছে। তাই তারা কাউকে পেমেন্ট করতে পারছে না। এবং রিং আইডি সিইও কে আইনের হেফাজত আনার পর তিনি বলে যারা যারা অ্যাকাউন্ট করেছে এবং তারা তাদের টাকা পায়নি তাদের সবাইকে টাকা বুঝিয়ে দেয়া হবে।

আর এই বিষয় নিয়েই রিং আইডি ব্যবহারকারীরা ৯ নভেম্বর (রবিবার) মানববন্ধন করবে বলে জানায়। তারা অনেকে যাবে রিং আইডির পক্ষে কথা বলার জন্য, আবার অনেকে যাবে তাদের টাকা পায়নি বলে। অনেকে আছে যারা ২২ হাজার টাকা দিয়ে কমিউনিটি জব এ ইনভেস্ট করার পর এখন পর্যন্ত কোন টাকা উঠাতে পারিনি। ২২ হাজার টাকার আইডির দাম প্রথমে ১০ হাজার টাকা ছিল। ১০ হাজার টাকা থাকাকালীন জারা জারা রিং আইডি তে ইনভেস্ট করেছে তারা ৯০ হাজার থেকে শুরু করে এক লক্ষ দশ হাজার টাকা পর্যন্ত পেমেন্ট পেয়েছে। তখন রিং আইডি ছিল কারণ মানুষ রিং আইডি তে একাউন্ট করেছিল। তাই তারা সবাইকে ঠিকমতো পেমেন্ট দিয়ে যাচ্ছিল। কিন্তু যখন থেকে রিং আইডি তে কমিউনিটি জবে ইনভেস্ট করা বন্ধ হয়ে যায় তখন থেকে তারা তাদের গ্রাহকদের টাকা দেয়া বন্ধ করে দেয়। এতে শুধু গ্রাহকদেরই লস হয়নি বরং এজেন্টের ও অনেক বড় পরিমাণ টাকা লস হয়েছে।আর এটা থেকে পরিষ্কার বুঝা যায় যে, রিং আইডি একজনের টাকা আরেকজনকে দিয়ে তাদের ব্যবসা চালাচ্ছিল। যেটা এমএলএম এর মধ্যে পড়ে। এমএলএম হচ্ছে বেআইনি একটা ব্যবসা। এই এমএলএম সাইট গুলো বেশিদিন থাকে না। তারা অনেকের টাকা একসাথে নিয়ে চলে যায়। কিন্তু রিং আইডি সবাইকে ঠিকমতো পেমেন্ট করে যাচ্ছিল তাই তাদের গ্রাহকরা তাদের প্রতি অনেক বেশি বিশ্বস্ত ছিল। এখন অনেক গ্রাহক দের তাদের প্রতি বিশ্বাস রয়েছে। আর তাই তারা ৯ নভেম্বর রবিবার মানববন্ধন করতে চাচ্ছে। আর সবার কথা চিন্তা করে বলা যায় এই সময় মানববন্ধন না করা ভালো হবে সবার জন্য।

আরো পড়ুনঃ- ১০ টাকার ভাড়া ১০০ টাকা

ধন্যবাদ আমাদের সাথে থাকার জন্য।এরকম আরোও খবরের জন্য আমাদের ফলো করতে পারেন ফেসবুকে

আমাদের সাথে সরাসরি যোগাযোগ করতে পারেন আমাদের ফেসবুক পেজে। আমাদের ফেসবুক পেজঃ- সমাধান বিডি ডট কম।

ফেসবুকঃ- somadanbd.com

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।